মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

মেয়রের বার্তা

 

বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম
সকল প্রশংসা মহান সৃষ্টিকর্তার

 

প্রিয় পৌরবাসী, বীর মুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, পৌরসভার কাউন্সিলরবৃন্দ, TLCC, WLCC সদস্যবৃন্দ, ব্যবসায়ীবৃন্দ, সরকারী-বেসরকারী সংস্থা, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান সমূহের প্রতিনিধি, আইনজীবি, ডাক্তার, সুশীলসমাজ, বিভিন্ন পেশাজীবি সংগঠন ও অঙ্গসংগঠনের কর্মকর্তাবৃন্দ, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার প্রতিনিধি এবং অত্র পৌরসভার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ উপস্থিত সুধিজন আপনাদের সকলকে আন্তরিক সালাম ও শুভেচ্ছা জানিয়ে যশোর পৌরসভার ২০১৫-২০১৬ অর্থ বছরের সংশোধিত বাজেট এবং ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করছি।

সম্মানিত পৌরবাসী,
আপনারা জানেন বাজেট হচ্ছে একটি রাষ্ট্র বা প্রতিষ্ঠানের  সংশ্লিষ্ট জনগণের আর্থ সামাজিক উন্নয়নকে সামনে রেখে পরিকল্পনা প্রনয়ন, অর্থায়নের উৎস নির্ধারণ, সর্বোপরি উন্নয়ন বাস্তবায়নের জন্য সুনিদৃষ্ট আয় ব্যয়ের নির্ধারণ, সর্বোপরি Road Map তৈরী করা। বাংলাদেশের পবিত্র সংবিধানে বাজেট প্রনয়নে তৃনমূল জনগনের অংশীদারিত্ব নিশ্চিত করার কথা বলা হয়েছে। আমাদের এই অনুষ্ঠানে আপনাদের সদয় উপস্থিতি সংবিধানে সন্নিবেশিত সেই ধারার প্রতিফলন বলে আমি মনে করি।

সমেবেত সুধি মন্ডলী,
    ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর আমি আপনাদের অকুন্ঠ সমর্থন ও ভোটে নির্বাচিত হয়ে  মেয়র হিসেবে বাংলাদেশের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী এই যশোর পৌরসভার দায়িত্বভার গত ০৬ মার্চ ২০১৬ তারিখে গ্রহণ করি । দায়িত্ব গ্রহনের পর আমি আমার লক্ষ্য নির্ধারন করি নিজ শহর যশোর পৌরসভার সড়কবাতি আধুনিকায়ন, সুপেয় পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা, বিনোদন সুবিধা সম্বলিত সৌন্দর্যমন্ডিত আধুনিক প্রশাসনিক কাজ পরিচালনা এবং তথ্য আদান প্রদানসহ ই-গভার্নেন্স প্রতিষ্ঠার জন্য কার্যক্রম গ্রহন করা এবং আর্থিক ও প্রাতিষ্ঠানিকভাবে দক্ষ একটি পরিকল্পিত নিরাপদ নগরী হিসেবে গড়ে তোলা। এই আশাবাদ নিয়ে  আপনাদের সবার সহযোগীতা নিয়ে আমি ও  আমার  বর্তমান পরিষদের ১ম বাজেট আপনাদের সামনে উপস্থাপন করছি।

প্রিয় নগরবাসী,

নগরীর অধিবাসী হিসাবে নাগরিক সুবিধা ভোগ করার প্রশ্নে আপনাদের যৌক্তিক অনেক দাবী আছে। আমিও এ প্রশ্নে আপনাদের সাথে সহমত পোষণ করি। তবে হৃদয় বিদারক হলেও এ কথা সত্যের অপলাপ নয় যে, সাধ এবং সাধ্যের সাথে দ্বন্দ সর্বজনবিদিত। বর্তমানে পৌরসভার আর্থিক অস্বচ্ছলতা ও কর্মকান্ডে স্থবিরতা কাটিয়ে পৌরবাসীকে নূন্যতম নাগরিক সুবিধা প্রদানের জন্য কিছু আয় বর্ধক ও উন্নয়নমূলক প্রকল্প বাজেটে অর্ন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। এছাড়া পৌরসভার সার্বিক ব্যবস্থাপনা উন্নয়নের জন্য পৌরসভার কর্মকর্তা/কর্মচারীদের দক্ষতা বাড়ানো, সামগ্রিক কার্যক্রমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জনগণের সত্যিকারের প্রতিষ্ঠান রূপান্তরের নিরালস প্রচেষ্টার জন্য পৌর পরিষদ দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ। আমরা এ বাজেটের সফল বাস্তবায়নের জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়,  স্থানীয় প্রশাসন ও সংশ্লিলষ্ট সকল মহলের সু-দৃষ্টি আকর্ষণ করে সহযোগিতা কামনা করছি।  

সমেবেত সুধি মন্ডলী,
            আমরা যশোরের সন্তান হিসেবে নিজেদেরকে পরিচয় দিতে গর্ব অনুভব করি । কিন্তু অতি দুঃখের সাথে বলতে হয়  ইতিহাস ও ঐতিহ্য অনুযায়ী  আমরা আমাদের  এ স্বপ্নের শহরকে নিজেদের মত করে গড়ে তুলতে পারিনি। এটা আমাদের ব্যর্থতা। গত এক বছর পূর্বে যশোর পৌরসভা এশিয়ান ডেভোল্পমেন্ট ব্যাংকের (ADP) আর্থিক সহায়তায় সিটি রিজিয়ান ডেভোল্পমেন্ট  প্রকল্পের (CRDP)    কাজ শুরু হয়েছে, বর্তমানে ৫২ কোটি টাকার উন্নয়ন মূলক প্রকল্পের কাজ চলমান আছে। এ প্রকল্পের আওতায় আশ্রম রোড, বেজপাড়া মেইন রোডসহ অন্যন্য রোড, ঘোপ সেন্ট্রাল রোড, পিয়ারী মোহন রোড, কারবালা রোড, লালদিঘী উন্নয়ন, পৌরপার্ক উন্নয়ন, শহিদ মশিয়ার রহমান সড়ক সহ বিভিন্ন রাস্তা, ড্রেন ও ফুটপাথের উন্নয়ন কাজ, ভৈরব নদী থেকে মুজিব সড়কের পাশদিয়ে পুলের হাটের মুক্তেশরী নদী পর্যন্ত ড্রেন ও ফুটপথ নির্মান, এরকাজ শুরু হয়েছে এবং কাজ অনেকটা শেষের পথে। এছাড়াও এশিয়ান ডেভোলবমেন্ট ব্যাংকের (ADP)  আর্থিক সহায়তায় তৃতীয় নগর পরিচালন ও অবকাঠামো উন্নতিকরন সেক্টর প্রকল্পে (UGIIP-III) এর আওতায় পৌরসভায় মোট ১০০ কোটি টাকার উন্নয়ন মূলক প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে, ইতিমধ্যে এ প্রকল্পের আওতায় ১৬ কোটি টাকা বরাদ্ধ প্রদান করা হয়েছে। খুব শিঘ্রই দরপত্র আহবান করা হবে। তাছাড়া আগামিতে জলবায়ু পরিবর্তণ ট্রাস্ট ফান্ড প্রকল্প নামে আরও একটি প্রকল্পে যশোর পৌরসভা অন্তরভুক্তি হতেযাচ্ছে। এ প্রকল্প গুলির সুষ্ঠ ব্যবহার করতে পারলে আমাদের প্রিয় শহরকে একটি আধুনিক শহরে রূপান্তরিত করতে পারবো ইনশাল্লাহ্।

উপস্থিত সম্মানীত নাগরিকবৃন্দ,
আমাদের দায়িত্ব গ্রহনের বয়স প্রায় ৪ মাস । এবারকার বাজেট হলো বর্তমান পরিষদের ১ম বাজেট। বাজেট প্রনয়নের পূর্বে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নাগরিকদের মতামত গ্রহন করা হয়েছে। পৌরসভার সকল শাখা বিভাগের তথ্য সংগ্রহ করে পৌরসভার সংস্থাপন ও অর্থ বিষয়ক স্থায়ী কমিটি খসড়া বাজেট প্রনয়ন করেছে। পরবর্তীতে পৌরসভার নগর সমন্বয় কমিটির সভায় ও পৌর পরিষদের সভায় বাজেট অনুমোদন গ্রহন করা হয়েছে। তাই সকলের মতামতের প্রেক্ষিতে যশোর পৌরসভার সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে  ২০১৫-২০১৬ অর্থ বছরের সংশোধিত বাজেট টাকা =৮৫ কোটি ০৭ লক্ষ টাকা এবং ২০১৬-২০১৭ ইং অর্থ বছরের বাজেট মোট টাকা =১২৭ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা  ঘোষণা করলাম।

পরিশেষে, আপনাদের সকলকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে আমাদের জন্মস্থান যশোর শহরকে একটি আধুনিক, বিনোদন সুবিধা সম্বলিত ,সৌন্দর্য মন্ডিত, স্বাস্থ্য সম্মত সুন্দর নগরী গড়ার দৃঢ় প্রত্যয় জানিয়ে সকলের সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে শেষ করছি। আল্লাহ আমাদের সহায় হউন।





যশোর পৌরসভা কার্যালয়,                     (মোঃ জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু)
যশোর                                                             মেয়র                                                                                  
                                                             যশোর পৌরসভা।