মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

দেওয়ানী মামলার বিচারকের ক্ষমতা বৃদ্ধি

বিচারকের সর্বোচ্চ বিচারক্ষমতা

লর্ড কর্ণওয়ালিস বিচারকদের বিচারক্ষমতা বৃদ্ধি করে দিয়েছিলেন। লর্ড কর্ণওয়ালিসের আগে বিচারকরা সরকারের অন্যান্য দপ্তরের অফিসারদের কাজের ব্যাপারে হসত্মক্ষেপ করতে পারতেন না। লর্ড কর্ণওয়ালিসের সময় তারা এই ক্ষমতা লাভ করেছিলেন। সাধারণ মানুষ নির্বাহী বিভাগের কর্মকর্তাদের বিরম্নদ্ধে তাদের কাছে মামলা করতে পারতো।১০১

বিচারকদের আচরণ

বিচারকদের অবস্থান স্পষ্টভাবে একটু উপরে ছিল। সরকারি  ও বেসরকারি কর্তৃপক্ষের যেকোন কাজের এমনভাবে বিরোধীতা করতেন যেন তাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে কালেক্টর এবং অন্যান্য কর্মকর্তাদের খারাপ কাজ খুঁজে বের করে জনগণকে রক্ষা করার জন্য। মিঃ পার ভূষণার বিভিন্ন বিষয়ে কালেক্টরের বিপক্ষে আইনী মতামত দিয়েছিলেন। মিঃ মেলভিল তার পরে এসেছিলেন এবং তিনি এই ঘোষণার ব্যাপারে কোন বিরোধিতা না করলেও কালেক্টরের সাথে অন্য বিষয়ে দ্বন্দ্বে লিপ্ত ছিলেন।তিনি মাঝে মাঝে কালেক্টরকে খারাপ ভাষায় খোঁচা দিতেন যা জেলার অন্য কোন অফিসারগণও সহ্য করতে পারতেন না। সে প্রায়শই এই ধরণের কর্তৃত্বমূলক আচরণ করতেন এবং অসৌজন্যমূলক ভাষায় পরোয়ানা ইস্যু করতেন। এমনকি তার রেজিস্টার, যিনি খুবই নিম্ন পদস্থ কর্মকর্তা, তিনিও কালেক্টরের কাছে চিঠিপত্রের লেখনীতে একই ধরণের অসৌজন্যমূলক শব্দ বা রীতি পদ্ধতি ব্যবহার করতেন। রেজিস্টারের কাছে সরকারি পত্র লেখার জন্য কালেক্টরকে নমনীয় ভাষা ব্যবহার করার জন্য বলা হত এবং অপারগতার জন্য কালেক্টরকে হুমকি পর্যমত্ম দেয়া হয়েছিল।

 

একটা উদাহরণ থেকে মিঃ মেলভিলের কর্মকান্ডের প্রকৃতি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারনা লাভ করা যায়। কালেক্টরের মাধ্যমে কিছু গাঁজা ব্যবসায়ী লাইসেন্স ছাড়া গাঁজা বিক্রি করাতে শাস্তি হয়। মিঃ মেলভিল বিষয়টি বুঝতে পারলেন যে এ সমস্ত ব্যবসায়ীরা আইন মেনে লাইসেন্স নিতে বাধ্য নয়। তাই তিনি মামলাটি বাতিল করে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিকে মিথ্যা অভিযোগে শাস্তি প্রদানের প্রেক্ষেতে ৫ (পাঁচ) রুপি জরিমানা করলেন। এই রায়টি পুনঃপরীক্ষার জন্য দরখাস্ত করার ব্যাপারে কালেক্টর অবগত না হওয়াতে মি. মেলভিল তাকে ২০০ রুপি জরিমানা করলেন।

অন্য একটা বিষয় আমরা দেখি যে, মিঃ মেলভিল ঐ সমস্ত লোকদের বন্দীদশা থেকে মুক্ত করে দিয়েছিলেন যারা সরকারী দেনা পরিশোধ করেননি। মিঃ মেলভিল তাদের মূল ঋণ পরিশোধের মাধ্যমে মুক্ত করে দিলেন। কালেক্টর প্রসত্মাব করেছিলেন যে, যতক্ষণ পর্যমত্ম ঋণ আদায় করার খরচ তারা পরিশোধ না করেন ততক্ষণ পর্যমত্ম তাদের বন্দী রাখতে। কিন্তু মিঃ মেলভিল কালেক্টরের এই প্রসত্মাব প্রত্যাখ্যান করলেন। ইসাফপুরের রাজা জমিদারের সাথে অল্প কিছু মূল্যের বিনিময়ে পরগনা দানশিয়া প্রতিষ্ঠা করলেন যা পরবর্তীতে বিক্রি করা হয় এবং কতিপয় ব্যক্তি তা কিনে নেয়। ক্রয়কারীরা মূল্য কমানোর জন্য একটা মামলা করেন। তারা মামলায় উপস্থাপন করল যে, করণিক হিসাব-নিকাশে ভুল ছিল। এ ব্যাপারে বিচারকরা একটা ডিক্রি আদেশ জারী করল। নিঃসন্দেহে এখানে হিসাব-নিকাশ ভুল ছিল। একটা গ্রামের হিসাব-নিকাশ দুইবার করা হয়েছিল। পরে এটা পরিষ্কার হলো যে ক্রেতারা ভুল সংশোধনের জন্য নয় মূল্য কমানোর জন্য মামলা করেছিল। উপর্যুক্ত উদাহরণগুলো থেকে দেখা যায় যে, দেওয়ানী আদালত সব সময়ই প্রশাসন বিভাগের সাথে বিরোধিতা করত। বিচারকরা নিজেদের ক্ষমতার চেয়ে বেশি ক্ষমতা প্রদর্শন করতে ব্যসত্ম থাকতেন।

এখানে বিচারকদের সাথে লবণ বিভাগের সম্পর্কের ব্যাপারে একটা তথ্য উপস্থাপন করা যায়। ১৭৯০ সালে লবণ বিভাগ নামে একটা বিভাগ খোলা হয়। এটা তখন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের রূপ লাভ করেছিল যা সাধারণ নিয়মানুযায়ী চলত। লবণ বিভাগের বর্তমান অবস্থা এজেন্টরা আগের মত পছন্দ করছিল না। কারণ লবণ বিভাগ তাদের পুরনো সব সিস্টেম গ্রহণ করেছিল। তখন এজেন্টরা মি. বারোসের কাছে পুরনো সিষ্টেমের অকার্যকারিতা তুলে ধরে দাবি করলেন যেন তিনি নতুন কার্যকরী পদ্ধতি চালুর পক্ষে রায় দেন। মি. বারোস এ সমস্ত নিছক তথ্যের ভিত্তিতে রায় দিতেঅপারগতা জানালেন। তিনি লিখলেন যে, তাদের কর্মকৌশল ছিল অবৈধ এবং  শোষণমূলক। তাদের বিরম্নদ্ধে অনেক অভিযোগ দাখিল করা হয়েছিল। এই সমস্ত ব্যাপারে তিনি যখন চাষিদের অভিযুক্ত করে  ডেকে পাঠালেন তখন এজেন্টরা তাদের যেতে বাধা দিলেন এবং লবণ উৎপাদন বন্ধ করার জন্য বিচারককে অভিযুক্ত করলেন।

১৭৯৫ সালে মি. হেসেলরিজ বিচারক হিসেবে আসলেন। লবণের এজেন্টরা অনেক আশা নিয়ে তার কাছে আবেদন করলেন যে, তিনি যেন লবণ উৎপাদনে ফৌজদারী আদালতের হসত্মক্ষেপ রোধ করেন। কিন্তু তিনি তাদের অভিযোগে সন্তুষ্টি প্রকাশ করলেন না। বস্ত্ততপক্ষে লবণ বিভাগের অসদাচরণ এবং বিচারকদের অনীহার করণে লবণ উৎপন্ন বন্ধ হয়ে গেল। ১৭৯৫ সালে সরকার এ বিষয়টি আবার আমলে নিলেন এবং লবণ উৎপাদনের ধারাবাহিকতা রক্ষা করার চেষ্টা করলেন।

 

নতুন শাসনামলে প্রশাসনিক বিষয়গুলো স্থায়ী হাওয়ার পূর্ব পযমত্ম তাদের মধ্যে সম্পর্ক এরূপ ছিল। এর কিছু বছর পরে বিভাগগুলোর মধ্যে সম্পর্ক তুলনামূলক ভাল হয়েছিল।১০২